আজ ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৫ই মার্চ, ২০২১ ইং

ফুলবাড়ীতে পুষ্টি ভাতার জন্য টাকা চাওয়ায় কিলঘুষি, চেয়ারম্যানসহ আহত -৬

ভাপ্রেস প্রতিবেদক, ফুলবাড়ী।।

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে স্বপ্ন প্রকল্পের পুষ্টি ভাতার জন্য টাকা চাওয়ায় মারামারির ঘটনায় চেয়ারম্যানসহ কমপক্ষে ৬ জন আহত হয়েছে। আহত হলেন চেয়ারম্যান গোলজার হোনে মন্ডল (৫৭) শহিদুল হক (৩৬) সিরাজুল হক (৪১) জনি মিয়া(২৪) আব্দুস সামাদ(৬২) আবুবক্কর মিয়া(৩৪)। এদের মধ্যে গুরুতর আহত হয়েছেন কাশিপুর গ্রামের মজাহার আলীর ছেলে শহিদুল ইসলাম। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ইউনিয়ন পরিষদের রুম থেকে শহিদুলকে উদ্ধার করে ফুলবাড়ী হাসপাতালে ভর্তি করেছে । শনিবার বিকালে উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়ন পরিষদে এ ঘটনা ঘটে।
আহত শহিদুলসহ স্থানীয়রা জানান, নিজের স্ত্রীর নাম পুষ্টি ভাতার তালিকায় অন্তর্ভৃুক্ত করার জন্য চেয়ারম্যান গোলজার হোসেনের কাছে গেলে চেয়ারম্যান তাকে ফিরিয়ে দেন। এরপর শহিদুলের সামনে অন্য একজনের আইডি কার্ড নিলে, তিনি চেয়ারম্যানকে টাকা দেয়ার প্রস্তাব দেন। প্রস্তাব শুনে চেয়ারম্যান তার ছোট ভাই আইনুল হকের সাথে যোগাযোগ করতে বলেন। এমনি রাজি না হয়ে টাকার প্রস্তাবে রাজি হওয়ায় শহিদুল চেয়ারম্যানকে গালিগালাজ করেন। এতে রাগান্নিত হয়ে চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন তাকে থাপ্পর দিলে উভয়ের মধ্যে হাতাহাতি কিলঘুষি হয়। এ সময় শহিদুলের ঘুষিতে চেয়ারম্যানের ডান ভ্রুর উপরে কপাল ফেটে রক্ত বের হয়। পরে চেয়ারম্যানের ভাই আইনুল, গ্রাম পুলিশ সাইফুল ইসলাম সহ কয়েকজন মিলে শহিদুলকে ধরে ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষে আটকে রাখে। এক পর্যায়ে চেয়ারম্যানের ভাই, ছেলে, ভাতিজা কক্ষে ঢুকে শহিদুলকে বেধে বেধরক মারপিট করে। এতে শহিদুল জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। শহিদুলকে মারপিট করে অজ্ঞান করায়, চেয়ারম্যানকে অবরুদ্ধ ও তার পরিবারের লোকজনকে ধাওয়া করে আমজনতা। খবর পেয়ে ফুলবাড়ী থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে বাড়ীতে পৌছে দেন এবং শহিদুলকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে। বর্তমানে শহিদুল ফুলবাড়ী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ইউনিয়ন পরিষদের ঝাড়–দার আহম্মদ আলী ও মুদি দোকানদার রফিক জানান, চেয়ারম্যানের সাথে গোপন আর্থিক লেনদেনের কারনে মারামারির ঘটনাটি ঘটেছে। এই লেনদেনের সাথে চেয়ারম্যান ও তার ভাই আইনুল হক জড়িত আছে বলে আমাদের ধারনা।

এ প্রসঙ্গে কাশিপুর ইউপি চেয়ারম্যান গোলজার হোসেন মন্ডল টাকা চাওয়ার বিষয় অস্বীকার করে জানান, শহিদুলকে পুষ্টি কার্ড দিতে না চাইলে সে অকথ্য গালিগালাজ করে আমার উপর চড়াও হয়। পরে লোকজন তাকে রুমে আটকে রাখলে পুলিশ এসে নিয়ে যায়।

স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা মাইদুল ইসলাম জানান, এর আগে ভিজিডি কার্ড দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিলে ৫০ জনের কাছ থেকে প্রায় ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা তুলে দেয় শহিদুল। এর মধ্যে ১৫/২০ জন কার্ড পান। সেদিন নিজের স্ত্রীর জন্য পুষ্টি কার্ডের বিপরীতে আবারও টাকা দাবী করলে পুর্বের টাকা ফেরত চান শহিদুল। এ নিয়ে মারামারির ঘটনা ঘটেছে।

ফুলবাড়ী থানার এস আই প্রভাত চন্দ্র জানান, আহত অবস্থায় চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে বাড়ীতে এবং শহিদুলকে ফুলবাড়ী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে লিখিত ভাবে থানা কেউ অভিযোগ করেনি।

Leave a Reply

     এ জাতীয় আরও খবর.......

খবরটি বেশী পড়া হয়েছে

Don`t copy text!