আজ ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ৫ই মার্চ, ২০২১ ইং

২৫ হাজার টাকা জন্য অপারেশন হচ্ছে না মেধাবী ছাত্র লিটনের

ভাপ্রেস প্রতিবেদক, কুড়িগ্রাম।।

আমি শুধু এই অসহ্য যন্ত্রণা থেকে বাঁচতে চাই! কান্না জড়িত কণ্ঠে ওপার থেকে ভেসে আসা কথাগুলো বারবার হৃদয়ে আঘাত হানছে! রংপুর মেডিকেল হাস্পাতালের সার্জারি বিভাগের ৩১ নাম্বার রুমে অবহেলিত, লাঞ্চিত ও গুরুত্বহীনতায় ভাঙ্গা হাতের অসহ্য যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার গুনাইগাছ ইউনিয়নের তিস্তা নদী ভাঙ্গনের স্বীকার হতদরিদ্র পরিবারের ছেলে মোহাম্মদ লিটন মিয়া।
সে কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজের অনার্স চতুর্থ বর্ষের ছাত্র। অভাবের এই সংসারে নিজের লেখা পড়ার খরচ সহ, বিবাহ উপযুক্ত ছোট বোনের ও লেখা পড়ার খরচ চালাতে হতো হয় তাকে। তাই প্রতিবারের মতো এবারেও নরসিংদী জেলার মাদবদীর একটি ডায়িং ফ্যাক্টরিতে সাময়িক সময়ের জন্য কর্মে যোগদান করে, কিন্তু ভাগ্যের বড় নির্মম পরিহাস যে, কর্মরত অবস্থায় নিজের অজান্তেই স্লিপ কেটে পড়ে যাওয়ার ফলে তার বা হাতটি সম্পুর্নরুপে ভেঙ্গে যায়।
এক্সরে করার পরে ডাক্তার অতি তারাতাড়ি অপারেশন করাতে বললেও টাকার অভাবে ভাগ্যে জোটেনি কোনো প্রাইভেট হাস্পাতাল বা ক্লিনিকে। অবশেষে রংপুর মেডিকেল হাস্পাতালে ভর্তি করা হলেও কেউ গুরুত্ব দিচ্ছেনা তার চিকিৎসায়। তার বাবার দৈনিক ইনকাম দিয়েই কোনো রকমে চলে তাদের সংসার ফলে ছেলের দেখাশোনাও করতে পারছেন না ঠিকভাবে। ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে এখন একা একা হাস্পাতালের বেডে শুয়ে চোখের কোণে লুকিয়ে থাকা জল ফেলছে এই ছাত্র আর নিজের ভাগ্যকে দোষারোপ করছে সে। অপারেশন সুসম্পন্ন করতে প্রায় ২৫ হাজার টাকা লাগবে অথচ জমা নেই একটি টাকাও নেই।
কর্মজীবনের শুরু হতে না হতেই ভাগ্যের এই নির্মম পরিহাসের স্বীকার হবে এমনটি কল্পনাও করতে পাচ্ছেনা মোহাম্মদ লিটন। তার এই করুণ পরিস্থিতিতে সকলকে সাহায্যের আবেদন জানিয়েছেন সে।
তার সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগে করতে 01787910103, 01303255249 (বিকাশ+রকেট)

Leave a Reply

     এ জাতীয় আরও খবর.......

খবরটি বেশী পড়া হয়েছে

Don`t copy text!