আজ ১১ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ ইং

ফুলবাড়ীতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে আইসক্রীম তৈরী

রবিউল ইসলাম বেলাল, ফুলবাড়ী:
কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে প্রশাসনের নজর ফাঁকি দিয়ে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে, ক্ষতিকারক উপাদান দিয়ে তৈরী হচ্ছে নি¤œমানের আইসক্রীম। বিএসটিআই (বাংলাদেশ স্ট্যান্ডাডর্স এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন) অনুমোদন বিহীন এসব আইসক্রীম খেয়ে মারাত্বক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে কোমলমতি শিশুসহ সাধারণ মানুষ।
সরেজমিনে উপজেলার গেটের বাজারে আইসক্রীম কারখানায় গিয়ে দেখা যায়, কারখানার ভিতরে অস্বাস্থ্যকর নোংরা পরিবেশে হাতে গ্লোভস্ বিহীন শিশু ও যুবকদের দিয়ে প্যাকেট করানো হচ্ছে আইসক্রীম। ফুলবাড়ীর প্রত্যন্ত অঞ্চলে তৈরী হলেও আইসক্রীমের প্যাকেটের গায়ে স্বাদ কুলফি আইসক্রীম, বাগেরহাট স্ট্রিকার লাগানো রয়েছে।
কারখানার মালিক উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের পূর্ব-ধনীরাম (গটেরবাজার) গ্রামের জহুরুল হকের ছেলে শামিম কবির (২৯) জানান, গত দুই- তিন বছর ধরে কারখানা স্থাপন করে আইসক্রীম বিক্রি করেছেন তিনি। প্রথমে কারখানার নাম দিয়েছেন (আনন্দ) আইসক্রীম। বর্তমানে নাম দিয়েছেন ‘মা আইসক্রীম’। কিন্তু আইসক্রীমের প্যাকেটে আনন্দ বা মা কোনটিই লেখা নাই। কারখানার সামনেও নেই কোন সাইন বোর্ড ব্যানার। বিএসটিআই এর অনুমোদন আছে কিনা জানতে চাইলে, এর অফিস কোথায় ? বলে সাংবাদিকদের উল্টো প্রশ্ন করেন শামীম। তবে ইউনিয়ন পরিষদের ট্রেড লইসেন্স ও ১২/০২/২০২০ ইং তারিখে মেয়াদ উত্তীর্ন সিভিল সার্জনের অনুমতি পত্র আছে বলে জানান তিনি।

এ প্রসঙ্গে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্যানিটারী ইন্সপেক্টর সামছুল আরেফিন জানান, সরেজমিন পরিদর্শনে ওই কারখানায় অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ ও ক্ষতিকারক পাউডার দিয়ে আইসক্রীম তৈরীর সত্যতা পাওয়া গেছে। এ আইসক্রীম যে-কোন বয়সের মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য ঝুঁকিপুর্ন। তাছাড়া তাদের লাইসেন্সের মেয়াদও উত্তীর্ন, তাই ওই কারখানায় আইসক্রীম উৎপাদন বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো.তৌহিদুর রহমান জানান, লাইসেন্স না থাকলে এবং অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে আইসক্রীম তৈরী করা হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে কারখানার মালিকের বিরুদ্ধে।

Leave a Reply

     এ জাতীয় আরও খবর.......

খবরটি বেশী পড়া হয়েছে

Don`t copy text!